যে ঈদ কষ্টের..!

প্রকাশিত: আগস্ট ০১, ২০২০

পরিবারের বাবা যখন থাকে না, তখন বড় ভাইয়ের কাছে ছোট বোন আবদার করবে। এটাই স্বাভাবিক। আর বড় ভাই খুশি হয় তার আদরের ছোট বোন সোনিয়ার বিভিন্ন আবদার পূরণ করে।

যে ঈদ কষ্টের
এবারের ঈদে সে তার ভাইয়ের কাছে আবদার করে নতুন পোশাক, জুতা ও মেহেদি কিনে দেয়ার জন্য। উপার্জন ভালো না হওয়ায় ভাইটি অনেক চেষ্টা করেও হয়তো শেষ পর্যন্ত কিনে দিতে পারেনি।

ঈদের দিন সকালে সোনিয়া ভাইয়ের উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে। এতটুকুন ছোট মেয়ের মস্তিষ্কে এখনো ধনী-দরিদ্রের পার্থক্যটা হয়তো ঢুকেনি। আর্থিক সক্ষমতা-অসক্ষমতার বাস্তবতা বুঝার মত তার বয়স হয়নি।

সে শুধু এটুকুনই বুঝেছে যে, তার আশপাশের সমবয়সীরা সবাই ঈদে নতুন নতুন জামা কাপড় পড়ে আনন্দ করবে কিন্তু সে পারবে না। তাদের বাবা-ভাই যদি কিনে দিতে পারে, তার ভাই কেন কিনে দিলো না!

এই অবুঝ যুক্তিতেই সে পরপারে পাড়ি জমিয়েছে।

সোনিয়ার আত্মহত্যায় তার বড় ভাই কতটা কষ্ট পাচ্ছে, তার জন্য জীবনের বাকি ঈদগুলো কতটা কষ্টের হতে পারে! সেটা সবাই অনুধাবন নাও করতে পারে কিন্তু প্রতিবার ঈদে তার ভাই বার বার মরে যাবে, কষ্টে, বোনের আবদার পূরণ না করতে পারার অনুশোচনায়।

এই অনুশোচনা কি শুধু তার ভাইয়ের করার কথা নাকি আমাদের সবার? আমরা যারা প্রতিবেশীদের দুঃখ-কষ্টের খোঁজখবর না রেখে শুধুমাত্র নিজেদের পরিবারে 'ঈদ' নিয়ে আসি, সেই 'ঈদ' সবার নয়।

ইসলামে 'ঈদ' ব্যক্তিগত নয়, সামষ্টিক। কিন্তু আমরা সেটাকে আজ সবকিছুর ন্যায় ব্যক্তিগত বানিয়ে ফেলেছি। এই স্বার্থপরদের জন্য জান্নাত নয়। আল্লাহ কখনোই স্বার্থপর, আত্মকেন্দ্রিকদের জন্য জান্নাত তৈরি করতে পারেন না।

নতুন জামা না পেয়ে ভাইয়ের সঙ্গে অভিমান করে বোনের আত্মহত্যা - জাগো নিউজ

নিউজ লিংক: https://www.jagonews24.com/country/news/601432