বিশ্ব মুসলিম জাতির নিদারুণ অবস্থা, কর্মফল নাকি পরীক্ষা?

প্রকাশিত: জানুয়ারী ০২, ২০২১

সমগ্র মানবজাতিকে বিপদ থেকে উদ্ধার করতে এসেছিলেন মানবতার মুক্তির দূত, শেষ নবী মোহাম্মদ (সা.)। তিনি তাঁর দায়িত্ব পালন করে চলে যাবার পর মানবজাতির যাবতীয় সমস্যা সমাধানের দায়িত্ব এসে পড়ল তাঁর হাতে গড়া উম্মতে মোহাম্মদীর উপর। উম্মতে মোহাম্মদী ঘর থেকে বের হয়ে ঘোড়া ছোটালেন বিশ্বের পানে। অর্ধ পৃথিবীতে সত্যের আলো পৌঁছে দিয়ে যাবতীয় সমস্যার সমাধান করলেন।

কিন্তু তারপর?

একে একে রসুলাল্লাহর হাতে গড়া প্রিয় আসহাবগণ বিদায় নেবার পর রাজতান্ত্রিক খলিফারা ভোগবিলাসিতায় মত্ত হয়ে তারা তাদের দায়িত্ব ভুলে গেল। তারা ভুলে গেল অর্ধপৃথিবীতে রাজত্ব আর ভোগবিলাস করার জন্য তাদেরকে সৃষ্টি করা হয়নি বরং সমগ্র পৃথিবী থেকে যাবতীয় অন্যায়, অবিচার, অনাচার, হিংসা, বিদ্বেষ দূর করে ন্যায়, সুবিচার, সাম্য প্রতিষ্ঠার জন্য তাদেরকে সৃষ্টি করা হয়েছে।

বিশ্ব মুসলিম জাতির নিদারুণ অবস্থা

মধ্যযুগে ইউরোপ-আমেরিকায় মানবতার যে বিপর্যয় হয়েছে, মানুষের উপর যে নির্যাতন, নিপীড়ন চালানো হয়েছে, মানুষ আর্তচিৎকার করেছে বাঁচার জন্য তখন মুসলিমদের দায়িত্ব ছিল তাদেরকে রক্ষা করার জন্য সেখানে ছুটে যাবার। কিন্তু তারা সেখানে যায়নি। তখন তাদের মধ্য থেকে কিছু মানুষ মুক্তির আশায় সৃষ্টি করেছে নানা বাদ-মতবাদ। আজ সেই বাদ-মতবাদের ধারক-বাহকরাই বিশ্ব নিয়ন্ত্রণ করছে।

আজ মহা বিপদে পড়েছে এই মুসলিম জাতি, এটা তাদের সেই কর্মেরই পরিণতি, এখন তাদেরকে রক্ষা করবে কে?