আফগানিস্তান কেন এত গুরুত্বপূর্ণ

প্রকাশিত: জুলাই ১৯, ২০২১

আজ থেকে ২৩০০ বছর আগের সেই গ্রিক বীর আলেকজান্ডার থেকে বর্তমান যুগের মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র পর্যন্ত বহু সাম্রাজ্যবাদী শক্তি আফগানিস্তানের মাটিতে সামরিক আগ্রাসন চালিয়েছে। যেমন- উনবিংশ ও বিংশ শতাব্দীর আফগানিস্তানের দিকে যদি তাকাই, তাহলে দেখতে পাব এই সময়ে আফগানিস্তান চতুর্দিক থেকে বড় বড় সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর দ্বারা আক্রান্ত হয়েছে। ভারতের ব্রিটিশ সাম্রাজ্য, প্রবল প্রতাপশালী রাশিয়ার জার সাম্রাজ্য এবং উজবেকিস্তানের বুখারা খানাত সবাই যেন আফগানিস্তানের মাটিতে নিজেদের দখল প্রতিষ্ঠা করতে মরিয়া ছিল। আবার বিংশ শতাব্দীর দ্বিতীয়ভাগে এই আফগান ভূমির দখল নিতে মরিয়া হয়ে ওঠে তৎকালীন বিশ্বের দুই সুপার পাওয়ার সোভিয়েত ইউনিয়ন ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। শুরু হয় দশকব্যাপী প্রক্সিযুদ্ধ। সবশেষ ২০২১ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান ছেড়ে যাওয়ার প্রস্তুতি নিতেই আফগানিস্তানের দখল নিতে চীন, রাশিয়া, ভারত, পাকিস্তানসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পরাশক্তিরা আদাজল খেয়ে নেমে পড়েছে। প্রশ্ন হলো- এই পরাশক্তিদের কাছে আফগানিস্তান কেন এত গুরুত্ব পাচ্ছে?

আফগানিস্তান

বস্তুত এর কারণ হলো আফগানিস্তানের ভৌগোলিক অবস্থান। এই দেশটির সীমান্তবর্তী দেশগুলো হলো- ইরান, পাকিস্তান, চীন, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান ও উজবেকিস্তান। অর্থাৎ একদিকে রয়েছে দক্ষিণ এশিয়া তো আরেকদিকে মধ্য এশিয়া, ওদিকে আবার পশ্চিম এশিয়া। চীন যেমন আফগানিস্তানের কাঁধে নিঃশ্বাস ফেলছে, তেমনি ইরানি ভূমির সাথে জুড়ে আছে আফগান সীমান্ত। এদিকে রাশিয়ার কথাও ভুলে গেলে চলবে না। বর্ডার না থাকলেও মধ্যপ্রাচ্য ও রাশিয়ার রাজনৈতিক ও ধর্মীয় স্থিতিশীলতার জন্য আফগানিস্তান একটা বড় ফ্যাক্টর। সব মিলিয়ে আফগানিস্তানকে নিজের কব্জায় রাখাটা সকল আন্তর্জাতিক ও আঞ্চলিক পরাশক্তির জন্য কেবল গুরুত্বপূর্ণই নয়, বলা যায় আবশ্যক। সেই ভূরাজনৈতিক কারণেই আফগানিস্তানকে সবার দরকার। বৈদেশিক শক্তিগুলো সর্বাত্মক চেষ্টা চালাচ্ছে এই ভূখণ্ডকে নিজেদের করে নেবার। কেউ উন্নয়নের নামে আফগানিস্তানে ঢুকছে, কেউ নিরাপত্তা দেওয়ার নামে ঢুকছে, কেউ ইসলাম প্রতিষ্ঠার হুজুগ তুলে আফগানিস্তানে ঢুকছে। আদতে সবাই ঢুকছে আফগানিস্তান নামক চৌরাস্তার মোড়টা নিজেদের দখলে নিয়ে আঞ্চলিক নিরাপত্তা ও বাণিজ্যের উপর একচেটিয়া কর্তৃত্ব কায়েম করতে।